বাগানের জন্য মাটির পিএইচ (pH) নিয়ন্ত্রণ

Updated December 16, 2020

বাগানের মাটি নির্বাচনের এবং প্রস্তুত করার সময় একটি বিষয় অনেকেই এড়িয়ে যান এবং কম গুরুত্বের সাথে দেখেন - যা হলো মাটির পিএইচ (pH).

পিএইচ সংকেতটি রসায়ন বিজ্ঞানের ব্যবহৃত একটি গুরুত্বপূর্ণ সূচক। সহজভাবে বলতে গেলে পিএইচ দিয়ে মাটির এসিডিটি (acidity) বা অম্লত্ব সম্পর্কে জানা যায়। বাগান করার ক্ষেত্রে পিএইচ নিয়ে বিভিন্ন ধরনের তর্ক-বিতর্ক বিদ্যমান কিন্তু উদ্ভিদের সুস্বাস্থ্যের জন্য পিএইচ বিষয়টি সঠিক পরিমাণের মাঝে রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ব্যাপার। 

সাধারণত পিএইচ এর মাত্রা কম হলে বোঝা যায় যে মাটির অম্লত্ব বেশি, পিএইচ এর মাত্রা বেশি হলে বোঝা যায় যে মাটির অম্লত্ব পরিমাণ কম এবং ক্ষারের পরিমাণ বেশি।

এই পিএইচ এর পরিমাণের সাথে বিভিন্ন উদ্ভিদের সম্পর্ক রয়েছে। আমরা জানি উদ্ভিদের বিভিন্ন পুষ্টিগুণের কারণে কোন কোন উদ্ভিদের অম্লত্ব বা অ্যাসিডিটি বেশি থাকে, আবার কোন উদ্ভিদের এসিডিটি তুলনামূলক কম থাকে।

যদিও উদ্ভিদের এসিডিটি বা অন্যদের সাথে মাটির অম্লত্ব সরাসরি কোন সম্পর্ক নেই, তারপরও উদ্ভিদের পিএইচ এর মাত্রা যদি অতিরিক্ত বেশি বা কম হয় তাহলে তা উদ্ভিদের বৃদ্ধির পথে তা বাধা হিসেবে কাজ করতে পারে। তাছাড়া পিএইচ এর মাত্রার উপর ভিত্তি করে মাটিতে বসবাসকারী বিভিন্ন প্রয়োজনীয় অনুজীব যেমন ব্যাকটেরিয়া যেগুলো মাটির উর্বরতা বজায় রাখার জন্য প্রয়োজনীয়, সেগুলো বাধাপ্রাপ্ত হতে পারে।

তাই পরোক্ষভাবে মাটির পিএইচ নিয়ন্ত্রণ করার মোটামুটি ভাবে একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। খাদ্য শস্য বা বিভিন্ন সবজি চাষ করার ক্ষেত্রে চেষ্টা করা হয় পরিমাণ পিএইচ এর পরিমাণ নিউট্রাল বা ভারসাম্য অবস্থার চেয়ে কিছুটা কম অর্থাৎ সামান্য এসিডিক হিসেবে ধরে রাখা হয়।

মোটামুটি ভাবে একটি উর্বর জমির মাটির পিএইচ সাধারণত ৭ এর কাছাকাছি থাকে এবং ৭ হচ্ছে পিএইচ এর নিউট্রাল বা সাম্যাবস্থা। 

পিএইচ নির্ণয়

পিএইচ নির্ণয় এর জন্য সাধারণত ল্যাবরেটরিতে আপনার জমির মাটি পরীক্ষা বা সয়েল টেস্ট করানো হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে বিশেষ ধরনের কিটের মাধ্যমে মাটি সংগ্রহ করে সেটা ল্যাবরেটরিতে পাঠিয়ে দেয়া হয় এবং পরবর্তীতে সেখান থেকে মাটির পিএইচ টেস্টের ফলাফল জানা যায় 

আপনি যে ধরনের উদ্ভিদ চাষাবাদ করবেন, সেই অনুযায়ী পরবর্তীতে মাটির পিএইচ এর পরিমাণ পরিবর্তন করা সম্ভব।

তাই বাগান করা শুরু করার পূর্বে পিএইচ এর ব্যাপারে আপনি যা যা করতে পারেন, তা হলো:

  • সয়েল টেস্ট বা মাটি পরীক্ষা করানোর মাধ্যমে মাটির পিএইচ এর পরিমাণ নির্ণয় করা।
  • আপনি যে ধরণের উদ্ভিদ চাষ করবেন, সে উদ্ভিদের জন্য প্রয়োজনীয় পিএইচ এর মাত্রা জেনে নেওয়া।
  • আপনার মাটির বিদ্যমান পিএইচ এর মাত্রা প্রয়োজনীয় জৈব অজৈব উপাদান ব্যবহার করে উদ্ভিদের প্রয়োজন অনুযায়ী প্রস্তুত করে নেওয়া।

এই তিনটি ধাপ অনুসরণ করার মাধ্যমে আপনি সহজেই মাটির পিএইচ এর মাত্রা কাঙ্খিত পর্যায়ে নিয়ে আসতে পারবেন এবং তারই মাধ্যমে আপনার বাগানের উদ্ভিদগুলোর সুস্থ সবল বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে পারবেন।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *