বাগান এবং প্রাণী বৈচিত্র্য নিশ্চিত করা

Updated December 11, 2020

একটি বাগানে যখন বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগানো হয় তখন সেই গাছগুলো বিভিন্ন প্রজাতির বন্যপ্রাণ এবং পোকামাকড়কে আকৃষ্ট করে। যেসব বৃক্ষ জামের মতো ফল উৎপন্ন করে সেগুলো পাখিকে আকৃষ্ট করে, যেসব গাছের ফুল মধু সমৃদ্ধ সেগুলো প্রজাপতি এবং হামিংবার্ডকে আকৃষ্ট করে। এখন আপনি প্রশ্ন করতে পারেন, কেন বাগানে এধরনের বন্যপ্রাণ কিংবা কীটপতঙ্গ আসাকে উৎসাহিত করবেন?  উত্তর হিসেবে বলা যেতে পারে আপনার বাগানে এ ধরনের বন্যপ্রাণ কিংবা কীটপতঙ্গের দরকার রয়েছে। যেসকল কীটপতঙ্গ গাছপালার জন্য উপকারী সেগুলো বাগানের গাছগুলোর যে ক্ষতিকর পোকামাকড় রয়েছে সেগুলোকে শিকার করে গাছগুলোকে রক্ষা করে। বাগানের সবচেয়ে ভালো বন্ধু গুলোর মধ্যে রয়েছে গুবরে পোকা, সিরফিড মাছি এবং ছোট্ট, বিষমুক্ত ও পরজীবী বোলতা।

বৈচিত্র্যময় বাসস্থান তৈরি করার মাধ্যমে বাগানের জন্য উপকারী প্রাণী গুলোকে উৎসাহিত করতে হবে।  বিভিন্ন প্রজাতির ফুল গাছ বাগানে লাগান। এতে করে সারা বছরই কোনো না কোনো ফুল ফুটে থাকবে। এবং পারলে বাগানে কীটনাশক ব্যবহার করবেন না কারণ সেগুলো উপকারী কীটপতঙ্গেরও ক্ষতি করে।

এছাড়া উপায় আরো যে সব উপায়ে আপনি আপনার বৈচিত্র‍্যতাকে উৎসাহিত করতে পারবেন -

  • আপনি বাগানে যে ধরনের কীটপতঙ্গ আকৃষ্ট করতে চান সেগুলোর জন্য বিশেষ এবং নির্দিষ্ট রকমের খাবার ব্যবহার করুন। উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে, সোয়ালো পাখির মতো দ্বিধাবিভক্ত পুচ্ছসহ প্রজাপতির জন্যে বাগানে লতা জাতীয় গাছ লাগানো, মনার্ক শুঁয়োপোকার জন্য দুধের মত রস বিশিষ্ট গুল্ম লাগানো।
  • বাগানে পাখি, প্রজাপতি, উপকারী বোলতা এবং ব্যাঙ  এর জন্য আশ্রয় তৈরি করে রাখুন।
  • বাগানে প্রকৃতির মতো করেই স্তরে স্তরে গাছের প্রজাতি সাজান। যেমন লম্বা গাছ লাগানোর পাশাপাশি মাঝারি ধরনের গুল্ম এবং নিচু প্রজাতির এক বর্ষ এবং বহুবর্ষজীবী বীরুৎ লাগান।
  • বিভিন্ন প্রজাতির চিরসবুজ গাছ লাগান। এতে করে শীতকালেও বাসস্থান এবং খাদ্যের ব্যবস্থা হয়ে যাবে।
  • বাগানের আশেপাশেই একটি পরিষ্কার পানি উৎস প্রস্তুত করে রাখুন।
  •  বাগানের কোন একটি পাশে জঙ্গল রাখুন অথবা খুবই কম পরিমাণ চাষ করুন।

বেশিরভাগ প্রাকৃতিক বাস্তুসংস্থানে কীটপতঙ্গ এবং এদের শিকার করা প্রাণী একটি নিয়ন্ত্রিত কিন্তু গতিশীল সম্পর্ক বজায় রাখে। এসব শিকারি ছাড়া এদের শিকার খুব দ্রুত হারে তাদের জনসংখ্যা বৃদ্ধি করে ফেলবে এবং পরবর্তীতে এ কারণে খাবারের অভাবে মারা পড়বে। আপনার বাগানে বিভিন্ন কীটপতঙ্গেরও থাকা প্রয়োজন কারণ তারা উপকারী প্রাণীগুলোর খাদ্য হিসেবে বিবেচিত হয়। যদি এই উপকারী প্রাণী অথবা কীটপতঙ্গের খাবারের অভাব পড়ে সে ক্ষেত্রে তারা মারা যাবে অথবা আপনার বাগান ছেড়ে চলে যাবে। উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে এক ধরনের বিষমুক্ত বোলতা রয়েছে যেগুলো অন্য আরেক ধরনের বিষাক্ত বোলতার উপর নির্ভর করে বাঁচে। এই বিষাক্ত বোলতা গুলো বাগানের ক্ষতি করলেও বিষমুক্ত বোলতা বাগানের জন্য উপকারী। বিষমুক্ত এই বোলতাগুলো বিষাক্ত বোলতার উপর ডিম পাড়ে। এবং পরবর্তীতে ওই ডিমগুলো থেকে বোলতা গুলো বড় হতে থাকে এবং বিষাক্ত বোলতার শুয়োপোকাকে খেয়ে ফেলে। কিন্তু আপনি যদি কোনো কারণে বাগানে কীটনাশক ব্যবহার করে বিষাক্ত বোলতা কে মেরে ফেলেন সরিয়ে ফেলেন তাহলে আপনি আপনার বাগানের জন্য উপকারী যে বোলতা গুলো রয়েছে সেগুলোকেও আপনার বাগান থেকে সরিয়ে ফেলবেন। এটি আপনি ভালো নয়। তাই এ কাজগুলোর আগে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। 

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *